আবারও শীর্ষ ধনী বিল গেটস

bill-gates_0

বিশ্ব ধনীর তালিকায় আবারও শীর্ষস্থান দখল করেছেন বিল গেটস। বর্তমানে তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৮৭ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার বা ৮৭৪০ কোটি ডলার। ওয়েলথ-এক্স এবং বিজনেস ইনসাইডার এবারের তালিকাটি তৈরি করেছে।

প্রকাশিত তালিকা অনুযায়ী, শীর্ষ ৫০ ধনীর মোট সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ৪৫ ট্রিলিয়ন ডলার (এক লাখ কোটিতে এক ট্রিলিয়ন)। শীর্ষ ৫০ জনের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই পুরোপুরি নিজেকে একা এই পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন, যাকে বলা হয়, ‘সেলফ মেড ম্যান’। শীর্ষ ৫০ জনের মধ্যে ২৯ জনই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের। এর পরে চীনের রয়েছে চারজন। তৃতীয় স্থানে ভারতের রয়েছে তিনজন।

বর্তমানে প্রযুক্তিই আনছে অর্থবিত্ত। ওয়েলথ-এক্স ও বিজনেস ইনসাইডার একে বলছে, ‘টেক ইজ কিং’। তালিকার ১২ জনেরই মূল ব্যবসা প্রযুক্তিসম্পর্কিত। আর সবচেয়ে কম বয়সী বিত্তবান হচ্ছেন ফেসবুকের সহ-উদ্যোক্তা মার্ক জাকারবার্গ। তাঁর বয়স এখন ৩১ বছর। ৪২.৮ বিলিয়ন ডলার নিয়ে তিনি আছেন তালিকার অষ্টম অবস্থানে। সবচেয়ে বেশি বয়সের ধনী হচ্ছে ল’রিয়েলের লিলিয়ানে বেটেনকোর্ট। ৯৩ বছরের লিলিয়ানে তালিকায় আছেন ২৯ বিলিয়ন ডলারের সম্পদ নিয়ে ১৭তম স্থানে।

তালিকায় শীর্ষ ধনী বিল গেটসের পরেই আছেন ফ্যাশন জগতের অন্যতম নাম আমানসিও ওর্তেগা। তিনি স্পেনের মানুষ, পোশাক বিক্রির প্রতিষ্ঠান জারার মালিক। এরপরেই আছেন বিনিয়োগগুরু ওয়ারেন বাফেট, আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস এবং কোচ ইন্ডাস্ট্রির দুই ভাই ডেভিড কোচ ও চার্লস কোচ। তালিকার ৪৬ জনই পুরুষ। ৪ জন নারী বিলিয়নিয়ার থাকলেও তাঁরা অর্থবিত্ত পেয়েছেন উত্তরাধিকার সূত্রে।

বিল গেটসের বয়স এখন ৬০, তিনি মাইক্রোসফটের সহ-উদ্যোক্তা। এখন তাঁর আরেকটি পরিচয় হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম মানবহিতৈষী। জনহিতকর কাজে সম্পদের অন্তত ৫০ শতাংশ দান করার জন্য ‘গিভিং প্লেজ’ নামের যে কর্মসূচিটি রয়েছে তার উদ্যোক্তা বিল গেটস।

স্পেনের ওর্তেগার মোট সম্পদ ৬৬.৮ বিলিয়ন ডলার। তাঁর মূল কোম্পানি ইনডেটেক্স। ৬০.৭ বিলিয়ন ডলারের মালিক ওয়ারেন বাফেটের মূল কোম্পানি বার্কসায়ার হাতাওয়ে। তিনিও গিভিং প্লেজের অন্যতম উদ্যোক্তা। আমাজন ডট কমের জেফ বেজোসের সম্পদের পরিমাণ ৫৬.৬ বিলিয়ন ডলার। যুক্তরাষ্ট্রের কোচ ইন্ডাস্ট্রির দুই ভাই ডেভিড ও চার্লস কোচের সম্পদ যথাক্রমে ৪৭.৪ ও ৪৬.৮ বিলিয়ন ডলার। শীর্ষ ১০-এর বাকি ৪ জন হলেন যথাক্রমে ওরাকলের লরেন্স এলিশন (৫৪৫.৩ বিলিয়ন ডলার), মার্ক জাকারবার্গ, ব্লুমবার্গের মাইকেল ব্লুমবার্গ (৪২.১ বিলিয়ন) এবং সুইডেনের খুচরাবিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের ইনভার কামপ্রাড (৩৯.৩ বিলিয়ন)।

এরপরে তালিকায় আছেন যথাক্রমে অ্যালফাবেট-গুগলের লরেন্স পেজ ও সার্জেই ব্রিন, ওয়ালমার্টের জেমস, স্যামুয়েল ও এলিস ওয়ালটন, চীনের ডালিয়েন ওয়ান্ডা গ্রুপের ওয়াং জিয়ানলিং, ফ্রান্সের লিলিয়ানে বেটেনকোর্ট ও গ্রুপ আরনল্টের বার্নার্ড আরনল্ট, এরপরের তিনজনই হচ্ছে চকলেট প্রস্তুতকারী মার্সের ফরেস্ট মার্স, জ্যাকুলিন মার্স ও জন মার্স।

ভারতীয়দের মধ্যে রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রির মুকেশ আম্বানি আছেন ২৭তম অবস্থানে। তাঁর সম্পদ ২৪.৮ বিলিয়ন ডলার। ৪৩তম অবস্থানে থাকা ওয়াইপরোর আজিম প্রেমজির সম্পদ ১৬.৫ বিলিয়ন ডলার এবং ৪৪তম অবস্থানে আছেন সান ফার্মার দিলীপ সাঙ্গভি। তাঁর সম্পদ এখন ১৬.৪ বিলিয়ন ডলার।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s