এক পিলারেই তিন দেশের সীমানা চিহ্ন

জার্মানির নর্দান ওয়েস্ট ফাল রাজ্যের আখেন সিটির সীমান্ত পিলারটি নেদারল্যান্ডস, জার্মানি ও বেলজিয়ামকে পৃথক করে দিয়েছে। আর এ কারণেই পিলারটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘থ্রি ল্যান্ড পয়েন্ট’। জার্মান ভাষায় যাকে বলা হয় ‘ড্রাইল্যান্ডার অ্যাক’3 country piller
ড্রাইল্যান্ডার অ্যাক পিলারের তিন দিকে রয়েছে ওই তিন দেশের তিন শহর। শহর তিনটি হলো জার্মানির আখেন, নেদারল্যান্ডসের ফালস্ (ডাচ ভাষায় ভালস) ও বেলজিয়ামের লা কালামিনে (অবশ্য ফরাসিরা একে বলেন লা স্যাপেল)।

প্রতি বছর এই সীমান্ত পিলার দেখতে লাখ লাখ পর্যটক ছুটে আসেন আখেনে। তবে তা অবশ্যই গ্রীষ্মকালে। কেননা শীতকালে পুরো ইউরোপ জুড়ে চলে পর্যটক সংকট। তবে তীব্র শীত ও বৃষ্টির মধ্যেও আখেনে আসেন কেউ কেউ।

মূল সীমানা পিলারকে কেন্দ্র করে তৈরি করা হয়েছে একটি বৃত্তকার চক্র। এই চক্রের তিন পাশে তিন দেশের সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে স্টিলের পাত দিয়ে। পিলারের তিনপাশে আছে তিন দেশের অদ্যাক্ষর ডি, নেদারল্যান্ডের এনএল ও বেলজিয়ামের বি। সেখানে দেখা যায় জার্মানির ভাগে আছে ৫০ ভাগ, বেলজিয়ামের ৩০ ভাগ এবং বেলজিয়ামের ২০ ভাগ।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো বিভিন্ন দেশের সীমান্তে যেমন সীমান্তরক্ষী বাহিনী, পুলিশ, প্রাচীর কিংবা কাঁটা তারের বেড়া থাকে এখানে তার কোনোটাই নেই। তাই তিন দেশের পর্যটকরাই এখানে নিশ্চিন্তে ঘুরে বেড়ান সবসময়।

থ্রি-ল্যান্ড পয়েন্ট থেকে তিন দেশের তিন শহর দেখার জন্য আছে ওয়াচ টাওয়ার। পর্যটকদের সেবা দিতে আছে কফি শপ। এছাড়া পর্যটকদের পথ নির্দেশনার জন্য দেশগুলোর সম্পর্কে আছে নানা নির্দেশনা বোর্ড। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই থ্রিল্যান্ড পয়েন্টকে জার্মানরা গুরুত্বপূর্ণ স্টাটেজিক পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করতো। এই ইতিহাস সবাইকে মনে করিয়ে দিতে আছে বিশ্বযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ ও ইতিহাস লিখিত বোর্ড।

Advertisements

| সবচেয়ে শক্তিশালী লেজার রশ্মি উদ্ভাবন |

জাপানের একদল বিজ্ঞানী এবার পৃথিবীর সবচেয়ে শক্তিশালী লেজার রশ্মি উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে। এটি ২ পেটাওয়াট পালসের। যেটাতে আছে ২ কোয়াডরিলিয়ন ওয়াটস। বিজ্ঞানীরা এই লেজার রশ্মির নাম দিয়েছেন এলফেক্স (লেসার ফর ফাস্ট ইগনিশন এক্সপেরিমেন্টস)। এই লেজার রশ্মিটির দৈর্ঘ্য ৩০০ ফুট। জাপানের ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল বিজ্ঞানী এই লেজার রশ্মিটির তৈরির জন্য কাজ করেছেন।laser_Fotor

এই লেজার রশ্মিটি গতি এতই দ্রুত যে, গন্তব্যে পৌঁছতে এটির মাত্র পিকোসেকেন্ডে সময় লাগে। যে ডিভাইসটি থেকে এই লেজার রশ্মিটি তৈরি হয় সেটিতে খুব একটি শক্তির প্রয়োজন হয় না। খুব কম ওয়াট পুড়িয়ে ডিভাইসটি শক্তিশালী এই রশ্মিটি তৈরি করতে সক্ষম।

বিজ্ঞানীরা পরীক্ষাগারে এটির শক্তি পরীক্ষা করতে গিয়ে দেখেছেন, এই লেজার রশ্মিটি এক সারি কাচের মধ্য দিয়ে এটি দ্রুতই প্রবাহিত হতে পারে।

লেজারটির শক্তিমত্তা পরীক্ষা চলছে। লেজারটি থেকে ১০ পোওয়াটস শক্তি উৎপাদন করার লক্ষ্য নিয়েই কাজ চলছে বলে গবেষক দলের সদস্য ওসাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক জুনজি কাওয়ানাকা জানান।
Published Date:
Wednesday, July 29, 2015 – 16:15
News Source:
বাংলামেইল
Region:
Asia

| বিশ্বে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৩শ কোটি |

সারা বিশ্বে ৩শ কোটিরও বেশি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করছে। আর মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর অর্ধেক মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে ফেসবুক ব্যবহার করে। ফেসবুকের হিসাবে, যুক্তরাষ্ট্রে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা প্রতি পাঁচ মিনিটে একবার ফেসবুকে চোখ রাখে।internet user_0

ফেসবুক জানিয়েছে, দেড়শ কোটির বেশি মানুষ মাসে অন্তত একবার ফেসবুক ব্যবহার করে। ফেসবুকের হিসাবে এদের ৬৫ শতাংশ দিনে একবার ফেসবুকে প্রবেশ করে। এই হিসাবে অবশ্য মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর অর্ধেক একেবারেই ফেসবুক ব্যবহার করে না। তবে ফেসবুক বলছে, দিনে দিনে তাদের ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছে। যুক্তরাষ্ট্রের ফেসবুক ব্যবহারকারী প্রতি পাঁচ মিনিটে অন্তত একবার তাদের স্মার্ট ফোনের ফেসবুকে চোখ রাখে। গত তিন মাসের তুলনায় ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা অন্তত ১৩ শতাংশ বেড়েছে, ফলে ফেসবুক কোম্পানির আয়ও বেড়েছে ৩৯ শতাংশ, যা অর্থমূল্যে ৪শ কোটি ডলারের বেশি।
Published Date:
Thursday, July 30, 2015 – 16:15
News Source:
বিবিসি, সমকাল

| দ্রুতগতির নতুন মেমোরি আবিষ্কার |

মার্কিন চিপ জায়ান্ট ইনটেল এবং ফ্ল্যাশ মেমোরি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মাইক্রন এবার ন্যান্ড ফ্ল্যাশ প্রযুক্তির চেয়েও হাজার গুণ দ্রতগতির নতুন মেমোরি প্রযুক্তি থ্রিডি এক্সপয়েন্ট আবিষ্কার করেছে। আবিষ্কারকরা মনে করছেন, বৈজ্ঞানিক গবেষণা থেকে শুরু করে ভিডিও গেম পর্যন্ত এই প্রযুক্তি ব্যাপক প্রভাব ফেলতে পারবে।memory card

টেকঅ্যানালাইসিসের বব ও’ডানেল এ প্রসঙ্গে বলেন, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রতিনিয়ত ডেটা সাইজ বাড়ছে। প্রতিদিনের সাধারণ কাজেই ডেটা ট্রান্সফারে ব্যবহারকারীদের অনেক সময় ব্যয় হয় থাকে। কিন্তু নতুন এ মেমোরি প্রযুক্তিটির ফলে অনেক বড় আকারের ফাইলও খুব দ্রুত ট্রান্সফার করা সম্ভব হবে। এর মাধ্যমে ক্লাউড সেবাগুলোও বড় ফাইলের ক্ষেত্রে বিশেষ সুবিধা দিতে পারবে।

ধারণা করা হচ্ছে, আগামী ২০১৬ সাল নাগাদ থ্রিডি এক্সপয়েন্ট বাজারে আসতে পারে।
Published Date:
Thursday, July 30, 2015 – 16:30
News Source:
আলোকিত বাংলাদেশ
Region:
International

||কী খাবেন, কী খাবেন না ||

সেহরি
সারাদিন খাওয়া হবে না ভেবে সেহরিতে ভূরিভোজ রোজার কষ্ট বাড়িয়ে দেয়। বিশেষত, মাছ-মাংস অর্থাৎ প্রোটিন জাতীয় খাবার পানির তৃষ্ণা বাড়ায়। তাই সারাদিন তৃষ্ণাহীন ঝরঝরে অনুভূতি পেতে সেহরিতে ভাতের সাথে শুধু সবজি (ভাজি বা ঝোল করে) খান। সেহরিতে অল্প হলেও খান। প্রয়োজনে খেজুর-কলা বা দই-চিড়াও খেতে পারেন।

ইফতার
masjid-nabawi-at-iftar-time

ইফতারে ভাজা-পোড়া, গুরুপাক ও অতিরিক্ত মশলাদার, রকমারি অস্বাস্থ্যকর খাবার ও শরবতের পরিবর্তে দুই/ তিনটি খেজুর খেয়ে পানি পান করুন। খেজুর ও পানি মিলে সুক্রোজ তৈরি করে, যা তাৎক্ষণিক প্রাণশক্তি এনে দেয়। মাগরিবের নামাজ পড়ার পর রাতের খাবার (শাক-সবজি, মাছ-মাংস, ডিম, ডালসহ অন্যান্য সুষম খাবার) খেয়ে নিন।

|Lumo projects an interactive, motion-sensitive game experience onto walls and floors|

lumo-interactive-projector-3

Options visited a trade demonstrate or children’s museum of late, chances are you’ve witnessed an interactive, motion-sensitive demonstrate projected onto a wall membrane or floor. Lumo will be the at-home version of this specific technology, developed by technologists Meghan Athavale along with Curtis Wachs who commenced creating interactive environments pertaining to commercial settings. Seeing a demand for the cheaper and more user-friendly version with their product for interactive gaming in your house, they’re launching an Indiegogo campaign to advance the continued development involving Lumo.

Lumo pairs a pico projector with movement detection to make games that are expected onto a floor along with change as players move from the game. The existing game listing of 100 titles goes into kids’ favorites say for example a fishing game and the alphabet learning aid, plus comes with 10 web themes for kids to rejigger the action with custom art.

Though Lumo’s designers previously created their unique commercial system, the technology was too expensive back then for home use. As the cost of hardware and imaging technological innovation came down, and brilliant, long-life projection technology increased, it allowed Athavale along with Wachs to dream way up how their technology could create it into the household.

lumo-interactive-projector-2

Although the included game library appears strictly juvenile, developers get access to an SDK to produce new games. Existing games may be used with the projector with the addition of a mobile controller like the iMpulse.

With its HDMI user interface, Lumo can also double like a movie projector and brackets on either the walls or ceiling. Removing the Lumo golf ball from its brackets from bedtime and placing on the nightstand turns it right into a dream projector.lumo-interactive-projector-18

Lumo runs Android and offers 854 x 480 pixel resolution on the projection, 1.6 GHz processor and 8 GB of storage, and both Wi-Fi and Bluetooth.

Pets may also like Lumo, and indeed, videos on Lumo’s website show obsessed kitties chasing skittish fish in a virtual aquarium, but Lumo points out that cats can see higher resolutions than humans so may not stay interested in what might be a pretty overpriced cat toy on its own.

Currently, the Lumo system is seeking funding on Indiegogo. Pledges start at the US$499 Early Bird level, with delivery anticipated in June 2016 given a successful campaign and development cycle. Stretch goals will build additional functionality into Lumo, including painting new textures onto 3D objects.

You can watch some demonstrations of the product in Lumo’s Indiegogo’s pitch video below.